দশম শ্রেনী ভূগোল অধ্যায় ১ বহির্জাত প্রক্রিয়া ও তাদের দ্বারা সৃষ্ট ভূমিরূপ

দশম শ্রেনী ভূগোল অধ্যায় ১ – বহির্জাত প্রক্রিয়া ও তাদের দ্বারা সৃষ্ট ভূমিরূপ

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো

১. পৃথিবীর গভীরতম গিরিখাত অবস্থিত –
A. নেপালের কালীগণ্ডক নদীতে
B. ভারতের গঙ্গা নদীতে
C. চীনের হোয়াংহো নদীতে
D. মিশরের নীলনদে

Ans- A. নেপালের কালীগণ্ডক নদীতে ।

২. পার্বত্য প্রবাহের নদী উপত্যকার আকৃতি কেমন হয়?
A. U আকৃতির
B. V আকৃতির
C. O আকৃতির
D. W আকৃতির

Ans- B. V আকৃতির ।

৩. নদীবাহিত প্রস্তরখন্ডের আঘাতে নদী খাতের ক্ষয়প্রাপ্ত হওয়াকে বলা হয়
A. ঘর্ষণ ক্ষয়
B. অবঘর্ষ ক্ষয়
C. দ্রবণ ক্ষয়
D. বুদবুদ ক্ষয়

Ans- B. অবঘর্ষ ক্ষয় ।

৪. পৃথিবীর দীর্ঘতম ক্যানিয়ন হল –
A. গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন
B. ব্ল্যাক ক্যানিয়ন
C. ইচাং
D. হোল ক্যানিয়ন

Ans- A. গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন ।

৫. উচ্চ গতিতে নদীর প্রধান কাজ হল –
A. বহন
B. অবক্ষেপণ
C. ক্ষয় ও বহন
D. ক্ষয়

Ans- D. ক্ষয় ।

৬. পৃথিবীর উচ্চতম জলপ্রপাত হলো –
A. যোগ
B. নায়াগ্রা
C. বয়ামা
D. সাল্টো এঞ্জেল

Ans-D. সাল্টো এঞ্জেল ।

৭. মন্থকূপ সৃষ্টি হয় যার কার্যকর ফলে –
A. নদী
B. বায়ু
C. হিমবাহ
D. সমুদ্র তরঙ্গ

Ans- A. নদী ।

৮. পৃথিবীর বৃহত্তম বদ্বীপ হলো –
A. গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র মিলিত বদ্বীপ
B. আমাজন নদীর বদ্বীপ
C. কাবেরী নদীর বদ্বীপ
D. হোয়াংহো নদীর বদ্বীপ

Ans- A. গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র মিলিত বদ্বীপ ।

৯. পৃথিবীর বৃহত্তম সুপেয় জলের ভাণ্ডার হল –
A. নদী
B. সমুদ্র
C. হিমাবাহ
D. মাটির নিচের জল

Ans- C. হিমবাহ ।

১০. হিমশৈলের কত ভাগ সমুদ্র জলের উপরে থাকে –
A. ১/৬
B. ১/২
C. ১/১০
D. ১/৯

Ans- D. ১/৯ ।

১১. বড় হাতলওয়ালা ডেক চেয়ার এর মতো ভূমিরূপ কে ফরাসি ভাষায় কি বলে –
A. করি
B. সার্ক
C. কার
D. হর্ন

Ans- B. সার্ক ।

১২. হিমবাহের ক্ষয় এর ফলে সৃষ্ট যে ডিবির এক পাস মসৃণ এবং অপর পাশ অমসৃণ তাকে কি বলে –
A. রসেমতানে
B. কেটাল
C. এসকার
D. কুঁজ

Ans- A. রসে মতানে ।

১৩. ভারতের অন্তর্গত একটি পিরামিড চূড়ার নাম কি –
A. কেদারনাথ শৃঙ্গ
B. মাউন্ট এভারেস্ট
C. কাঞ্চনজঙ্ঘা শৃঙ্গ
D. নীলকন্ঠ শৃঙ্গ

Ans- D. নীলকন্ঠ শৃঙ্গ ।

১৪. ঢালু পর্বতগাত্র হিমবাহের মধ্যে যে ফাক দেখা যায় তাকে কি বলে –
A. করি
B. বাগশ্রুণ্ড
C. ক্রেভাসে
D. ওয়াদি

Ans- B. বাগশ্রুণ্ড ।

১৫. পৃথিবীর বৃহত্তম মরুভূমি কোনটি –
A. থর মরুভূমি
B. চিলির আটাকামা
C. সাহারা মরুভূমির
D. গোবি মরুভূমি

Ans- C. সাহারা মরুভূমি ।

১৬. অনেকগুলি বার্খান একসঙ্গে গড়ে উঠলে তাকে কি বলে –
A. বার্খান গোষ্ঠী
B. বার্খান দল
C. বার্খান কুঞ্জ
D. বার্খান শৃঙ্খল

Ans- D. বার্খান শৃংখল ।

১৭. থর মরুভূমির চলমান বালিয়াড়ি গুলিকে বলা হয় –
A. ধ্রিয়ান
B. ধামার
C. দৃভ
D. মেসা

Ans- A. ধ্রিয়ান ।

১৮. অর্ধচন্দ্রাকৃতি বালিয়াড়িকে কি বলা হয় –
A. হামাদা
B. ওয়াদি
C. ওমান
D. বার্খান

Ans- D. বার্খান ।

১৯. বাজাদা গঠিত হয় পেডিমেন্ট এর –
A. উপর
B. নিচে
C. সামনে
D. মাঝে

Ans-  B. নিচে ।

২০. পৃথিবীর বৃহত্তম মরুখাত হল –
A. মিশরের কাতার
B. অস্ট্রেলিয়ার মরুভূমি
C. ভারতের থর
D. চিলির আটকামা

Ans- A. মিশরের কাতার ।

২১. মরু অঞ্চলের অবশিষ্ট পাহাড় গুলোকে বলা হয় –
A. ইনসেলবার্জ
B. ইয়াদা
C. গৌড়
D. ধান্দ

Ans- A. ইনসেলবার্জ ।

২২. মরু অঞ্চল প্রসারের একটি প্রধান কারণ হলো –
A. বৃক্ষরোপণ
B. পশুচারণ
C. বিশ্ব উষ্ণায়ন
D. CFC কম ব্যবহার

Ans- C. বিশ্ব উষ্ণায়ন ।

২৩. সমুদ্র জলে ভাসমান পাহাড়ের বরফ স্তুপ কে বলা হয় –
A. পাথর শিলা
B. হিমশৈল
C. হিমপাহার
D. শিলা শৈল

Ans- B. হিমশৈল ।

২৪. পৃথিবীর বৃহত্তম নদী দ্বীপ অবস্থিত –
A. আমাজন নদীতে
B. নীল নদে
C. কাবেরী নদীতে
D. তিস্তা নদীতে

Ans- A. আমাজন নদীতে ।

২৫. অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ দেখা যায় গঙ্গা নদীর কোন প্রবাহ তে –
A. নিম্ন প্রবাহ
B. উচ্চ প্রবাহ
C. মধ্য প্রবাহে
D. কোনটি সঠিক নয়

Ans- A. নিম্ন প্রবাহ ।

২৬. U আকৃতির উপত্যকা দেখা যায় –
A. হিমবাহের ক্ষয় এর ফলে
B. নদীর ক্ষয় এর ফলে
C. সমুদ্রের ক্ষয় এর ফলে
D. মরুভূমিতে

Ans- A. হিমবাহের ক্ষয় এর ফলে ।

২৭. Busket of eggs relief বলা হয় কোন ভূমিরূপকে –
A. ড্রামলিন
B. কেম
C. এস্কার
D. কেটল

Ans- A. ড্রামলিন ।

২৮. একাধিক গৌড় কে একসঙ্গে বলে –
A. গৌড় কুঞ্জ
B. গৌড় শৃঙ্গল
C. গারা
D. গমা

Ans- C. গারা ।

২৯. CAZRI এর পুরো নাম –
A. Central Arid Zone Research Institute
B. Clean Area Zone Research Institute
C. Central Atom Zone Research Institute
D. Central Arid Zone Revolution Institute

Ans- A. Central Arid Zone Research Institute

৩০. পর্বতারোহীদের মৃত্যুফাঁদ বলা হয় –
A. বার্গস্রুন্ডকে
B. ক্রেভাস গুলিকে
C. বার্গস্রুন্ড ও ক্রেভাস গুলিকে
D. কোনোটিই নয়

Ans- C. বার্গস্রুন্ড ও ক্রেভাস গুলিকে ।

৩১. পৃথিবীর গভীরতম গিরিখাত –
A. এঞ্জেল জলপ্রপাত
B. এল ক্যানন দ কালকা
C. গেরসোপ্পা
D. ইলহা দা মারাজো

Ans- B. এল ক্যানন দ কালকা ।

৩২. পাখির পায়ের মতো বদ্বীপ দেখা যায় –
A. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মিসিসিপি মিসৌরি নদীর বদ্বীপ
B. ইতালির তাইবার নদীর বদ্বীপ
C. গঙ্গা ব্রহ্মপুত্র নদীর বদ্বীপ
D. নীল নদের বদ্বীপ

Ans- A. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মিসিসিপি মিসৌরি নদীর বদ্বীপ ।

৩৩. ভারতের উচ্চতম জলপ্রপাত –
A. সরাবতী নদীর জলপ্রপাত
B. গঙ্গা নদীর জলপ্রপাত
C. অ্যামাজন নদীর জলপ্রপাত
D. নায়াগ্রা জলপ্রপাত

Ans- A সরাবতী নদীর জলপ্রপাত ।

৩৪. পৃথিবীর দ্রুততম হিমবাহ কোনটি –
A. গ্রীনল্যান্ডের কোয়ারেক
B. সিয়াচেন
C. হুবার্ড
D. আটলান্টিকের ল্যাম্বার্ট

Ans- A. গ্রীনল্যান্ডের কোয়ারেক ।

৩৫. বদ্রীনাথ এর ঋষি গঙ্গা কীসের উদাহরণ –
A. রসে মতানে
B. ফিয়র্ড
C. ঝুলন্ত উপত্যকা
D ক্রাগ অ্যান্ড টেল

Ans- C. ঝুলন্ত উপত্যকা ।

 

শূন্যস্থান পূরণ করো

১. রাজস্থানের থর মরুভূমির সম্বর হ্রদ একটি _____ হ্রদ।

Ans- প্লায়া ।

২. বায়ু প্রাকৃতিক শক্তি হিসেবে প্রাধান্য লাভ করে ___অঞ্চলে ।

Ans – মরু অঞ্চলে ।

৩. পৃথিবীর প্রশস্ততম জলপ্রপাত হলো মেকং নদীর ___।

Ans- খোন ।

৪. দুটি নদীর মধ্যবর্তী স্থানকে বলা হয় ___।

Ans- দোয়াব ।

৫. ___হল নদীর গতিবেগ পরিমাপ একক ।

Ans- কিউসেক ।

৬. আলাস্কার ___হল পৃথিবীর বৃহত্তম উপত্যকা হিমবাহ ।

Ans- হুবার্ড ।

৭. ক্ষয়জাত ও পদার্থ কোন নিচু অংশের সঞ্চিত হয় ভূমি ভাগের উচ্চতা বৃদ্ধি করে একে বলা হয় ___।

 Ans- আরোহন ।

৮. বাজাদা একটি ___ শব্দ।

Ans- স্পেনীয় ।

৯. মরু অঞ্চলের শুষ্ক খাতকে ___বলা হয় ।

Ans- ওয়াদি ।

১০. জলরাশি কঠিন তরল গ্যাসীয় অবস্থার চক্রাকার আবর্তনকে বলা হয় ___।

Ans- জল ।

১১. বার্খান বায়ুর গতিপথে সঙ্গে ___ভাবে অবস্থান করে।

Ans- আড়াআড়ি ।

১২. ___কে মাশরুম রক বলা হয়।

Ans- গৌড় ।

১৩. ঝাড়খন্ডে ____নদীগর্ভে অসংখ্য মন্থকূপ দেখা যায়।

Ans- খরকাই ।

১৪. ____পৃথিবীর বৃহত্তম খাড়ি।

Ans- ওব নদী মোহনার খাড়ি ।

১৫. ____একটি ধনুকাকৃতি ব-দ্বীপ এর উদাহরণ ।

Ans- নীল নদের বদ্বীপ ।

১৬. ___ ও কোমল শিলা পাশাপাশি অবস্থান করলে জলপ্রপাত সৃষ্টি হয়।

Ans- কঠিন ।

১৭. নদীর পার্বত্য প্রবাহে প্রচন্ড ঢাল সম্পন্ন জলপ্রপাতে যখন বিপুল পরিমাণ জল প্রবাহিত হয় তখন তাকে ___ বলে ।

Ans- খরস্রোত ।

১৮. প্রপাত কূপ জলপ্রপাতের ___ স্থানে সৃষ্টি হয়।

Ans- পাদদেশ ।

১৯. পলল শঙ্কুর___ আকৃতি হয়।

Ans- অর্ধ গোলাকৃতি ।

২০. ___প্রবাহে নদীর ক্ষয় কার্যের চেয়ে সঞ্চয় বেশি করে ।

Ans- নিম্ন গতিতে ।

 

শুদ্ধ অশুদ্ধ নির্বাচন করো

১. পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল ,বারিমণ্ডল, শিলামন্ডলের মধ্যে জলের কঠিন ও তরল অবস্থায় চক্রাকার আবর্তনকে জল চক্র বলে।

Ans- অশুদ্ধ ।

২. পর্বতের উৎপত্তি স্থল থেকে সমভূমিতে পৌঁছনোর পূর্ব পর্যন্ত অংশকে নদীর ঊর্ধ্বগতি বলে।

Ans- শুদ্ধ ।

৩. ভূমিরূপ পরিবর্তনকারী প্রাকৃতিক শক্তি গুলিকে বলে বহির্জাত প্রক্রিয়া।

Ans- শুদ্ধ ।

৪. ধনুকাকৃতি ব-দ্বীপ ‘ব্যজনী বদ্বীপ’ পরিচিত।

Ans- শুদ্ধ ।

৫. পৃথিবীর বৃহত্তম হিমবাহ সিয়াচেন ।

Ans- অশুদ্ধ ।

৬. পুনর্যৌবন লাভ এর ফলে নিকবিন্দুতে সৃষ্ট একটি জলপ্রপাত হলো দশম।

Ans- শুদ্ধ ।

৭. শিলাময় মরুভূমি হল  বাজদা।

Ans- অশুদ্ধ ।

৮. নিম্নগতিতে নদীর ক্ষয়কার্য চলে ।

Ans- অশুদ্ধ ।

৯. ঝুলন্ত উপত্যকা জলপ্রপাতে গড়ে ওঠে।

Ans- শুদ্ধ ।

১০. গিরিখাত ও ক্যানিয়ন উভয়ই নদী পার্বত্য প্রবাহে ক্ষয় কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপ।

Ans- শুদ্ধ ।

১১. দ্রবণ ক্ষয় এর মাধ্যমে উপত্যকা সৃষ্টি হয়।

Ans- অশুদ্ধ ।

১২. ভারতের বৃহত্তম নদী অববাহিকা হল গঙ্গা নদীর অববাহিকা।

Ans- শুদ্ধ ।

১৩. নদীর গতি বেগ দ্বিগুণ হলে তার বহনক্ষমতা 60 গুণ বাড়ে।

Ans- অশুদ্ধ ।

১৪. ওয়াদি শব্দের অর্থ শুষ্ক উপত্যকা।

Ans- শুদ্ধ ।

১৫. ভারতের সর্বোচ্চ জলপ্রপাত হলো এঞ্জেল।

Ans- অশুদ্ধ

 

স্তম্ভ মেলাও

বামস্তম্ভডানস্তম্ভ
a. পৃথিবীর উচ্চতম জলপ্রপাত           ১. বোয়ামা
b. পৃথিবীর প্রশস্ততম জলপ্রপাত         ২. যোগ
c. পৃথিবীর গভীরতম গিরিখাত           ৩. অ্যাঙ্গেল
d. সর্বাধিক জল বহনকারী জলপ্রপাত ৪. খোন
e. ভারতের উচ্চতম জলপ্রপাত ৫. এলক্যাননদেকলকা

Ans-

a – ৩
b – ৪
c – ৫
d – ২
e – ১ 

 

একটি বা দুটি শব্দ উত্তর দাও

১. হিমরেখা কাকে বলে?

Ans- চিরতুষারাবৃত অঞ্চলের নিম্নতম প্রান্তরেখাকে কাকে বলে।

২. ভারতের বৃহত্তম হিমবাহ কোনটি?

Ans- ভারতের বৃহত্তম হিমবাহ সিয়াচেন।

৩. সিফ কাকে বলে?

Ans- বায়ুর গতিপথে সমান্তরালভাবে গঠিত বালিয়াড়ি গুলিকে সিফ বলে।

৪. একটি ঝুলন্ত উপত্যকার উদাহরণ দাও।

Ans- উত্তরাখন্ড রাজ্যে বদ্রীনাথ এর নিকট ঋষিগঙ্গা উপত্যকা একটি ঝুলন্ত উপত্যকার উদাহরণ ।

৫. পললশঙ্কু কোথায় গড়ে ওঠে?

Ans- পললশঙ্কু নদীর মধ্য ও উচ্চ প্রবাহের সংযোগস্থলে গড়ে ওঠে ।

৬. একাধিক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র তীব্র গতি সম্পন্ন জলপ্রপাতে সমষ্টিকে কি বলা হয়?

Ans- কাসকেড ।

৭. লোয়েস সমভূমি কোন মরুভূমি থেকে উড়ে আসা লোয়েস কনার সৃষ্ট?

Ans- গোবি মরুভূমি ।

৮. বায়ুর অপসারণের ফলে সৃষ্ট গর্তকে  থর মরুভূমিতে কি বলে?

Ans- ধান্দ ।

৯. কোন দেশকে ফিয়র্ডের দেশ বলা হয়?

Ans- নরওয়েকে ।

১০. আউটওয়াশ প্লেনে সৃষ্ট গর্ত গুলোকে কি বলে?

Ans- কেটল ।

১১. যে নদীর গতিপথের তিনটি গতি সুস্পষ্টভাবে লক্ষ্য করা যায় তাকে কি নদী বলে?

Ans- আদর্শ নদী ।

১২. নদীর উচ্চগতিতে প্রধান কার্য কি?

Ans- ক্ষয় কার্য ।

১৩. হিমবাহ উপত্যকার আকৃতি কিরূপ হয়?

Ans- U আকৃতির ।

১৪. নদীর প্রধান তিনটি কাজ কি কি?

Ans-

1. ক্ষয়
2. বহন
3. অবক্ষেপন

১৫. প্রপাত কূপ কাকে বলে?

Ans-জলপ্রপাতের পাদদেশে সৃষ্ট ঘূর্ণবাত এর মধ্যস্থিত নুরি বা শিলা পাক খেতে খেতে ঘর্ষণের ফলে ভূমিশিলায় যে গর্তের সৃষ্টি করে তাকে প্রপাতকূপ বলে।

১৬. অশ্বখুরাকৃতি হ্রদ নদীর কোন গতিপথে সৃষ্টি হয়?

Ans- নিম্ন গতিপথে ।

১৭. পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ কোনটি?

Ans- সুন্দরবন ।

১৮. মোট জলের কত শতাংশ হিমাবাহ রূপে রয়েছে?

Ans- ২৫% ।

১৯. একটি পিরামিড চূড়ার উদাহরণ দাও l

Ans- হিমালয় পর্বতের নীলকণ্ঠ শৃঙ্গ ।

২০. Sandur এর অপর নাম কি?

Ans- বহিঃধৌত সমভূমি ।

 

সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ প্রশ্ন মান – ২/৩]

১. ফিয়র্ড কাকে বলে উদাহরণসহ লেখ।

Ans- ফিয়র্ড হলো হিমবাহ কর্তিত উপত্যকা যা সমুদ্রের জল দ্বারা প্লাবিত হয়ে সমুদ্রতলায় অবস্থান করে। এর প্রান্তভাগে চৌকাঠের মত একটি অংশ উপস্থিত থাকে। এর উর্ধাংশে বরফের গভীরতা বেশি থাকায় ক্ষয়ের পরিমাণ বেশি। উদাহরণ – নরওয়ের সোজনে ফিয়র্ড।

২. কেম কাকে বলে? কেমমঞ্চ কাকে বলে?

Ans- নিশ্চল বা গতিহীন হিমাবাহ এর পার্শ্বদেশ বরাবর দুটি নদী প্রবাহিত হয়। এই নদী দ্বারা হিমবাহ উপত্যকার পার্শ্বদেশের সঞ্চিত পিন্ডাকৃতি ঢিবি কে কেম বলে।

কেমগুলি পরস্পর যুক্ত হয়ে হিমাবাহের দুপাশে মঞ্চের আকারে অবস্থান করলে তাদের কেমমঞ্চবলে।

৩. ক্রগ ও টেল কাকে বলে?

Ans- হিমাবাহ এর প্রবাহে প্রথমে কঠিন শিলা ও পরে কোমল শিলা অবস্থান করলে কোমল শিলা সরাসরি ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা পেয়ে কঠিন শিলার পেছনে লেজ এর মত অবস্থান করে। এই রূপ ভূমিরূপকে ক্রগ ও টেল বলা হয়।

৪. ভারতের মরুভূমি কি নামে পরিচিত? চলমান বালিয়াড়ি গুলিকে থর অঞ্চলে কি বলে ?

Ans- মরুস্থলি , ধ্রিয়ান।

৫. একটি ধনুকাকৃতি ও পাখির পায়ের মতো বদ্বীপ এর উদাহরণ দাও।

Ans- গঙ্গা নদীর বদ্বীপ , মিসিসিপি মিসৌরি নদীর বদ্বীপ।

৬. কে কত খ্রিস্টাব্দে প্রথম ‘মরেন’ শব্দটি ব্যবহার করেন ?

Ans- শারপেন্টিয়ার ,১৮৪১ খ্রিস্টাব্দে।

৭. মন্থকূপ কি?

Ans- প্রবল বেগে প্রবাহিত নদীর তলদেশ বা পার্শ্বদেশে জলাবর্ত সৃষ্টি হলে সেখানে নুরি বা শিলার ঘর্ষণের ফলে যে গর্তের সৃষ্টি হয় তাকে মন্থকূপ বলে।

৮. জলবিভাজিকা কাকে বলে?

Ans- যে উচ্চভূমি পাশাপাশি অবস্থিত দুটি বা ততোধিক নদীর অববাহিকা কে পৃথক করে থাকে জলবিভাজিকা বলে। জলবিভাজিকা অঞ্চল থেকে ঘনীভবন বাষ্পীভবন এবং বৃষ্টিপাত এর মাধ্যমে চক্র সম্পন্ন হয়।

৯. পৃথিবীর ধীরতম ও দ্রুততমহিমবাহ কোনটি?

Ans- অ্যান্টার্কটিকার মেসার্ভ  ও গ্রীনল্যান্ডের কোয়ারেক।

১০. সিফ শব্দের অর্থ কি? সিফ বালিয়াড়ি কাকে বলে?

Ans- সোজা তরবারি। বায়ুর গতিপথে সমান্তরালে গঠিত দীর্ঘ বালির শৈলশিরা কে সিফ বালিয়াড়ি বলে।

 

ব্যাখ্যামূলক প্রশ্ন [প্রশ্ন মান – ৫]

১. হিমবাহের ক্ষয়জাত পাঁচপ্রকার ভূমিরূপ এর বিবরণ দাও।

Ans- হিমবাহের ক্ষয়কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপ

পিরামিড চূড়া: একটি পর্বতের বিভিন্ন দিকে কয়েকটি হিমবাহ বা সার্ক সৃষ্টি হলে, পর্বতশীর্ষটি পিরামিডের মতো খাড়া ও তীক্ষ্ণ কোন অংশে পরিণত হয়, একটি পিরামিড চূড়া বলে। হিমালয় পর্বতের নীলকণ্ঠ শৃঙ্গ, নেপালের মাকালু একটি পিরামিড চূড়ার উদাহরণ।

ঝুলন্ত উপত্যকা: কোন মূল হিমাবাহ এর একাধিক উপ হিমবাহ এসে পড়ে। মূল হিমবাহের উপত্যকার গভীরতা উপহিমবাহ অপেক্ষা অনেক বেশি হয়। হিমবাহ অপসারিত হলে উপ হিমবাহের উপত্যকাগুলি মূল হিমাবাহ এর উপর ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে বলে মনে হয়, একে ঝুলন্ত উপত্যকা বলে। বদ্রীনাথ এর কাছে ঋষি গঙ্গা একটি ঝুলন্ত উপত্যকা।

হিমদ্রোণী: হিমবাহের ক্ষয় কার্যের মাধ্যমে অত্যন্ত প্রশস্ত মোটামুটি মসৃণ ও খাড়া ঢাল এর পার্শ্বদেশ বিশিষ্ট যে হিমবাহ উপত্যকা সৃষ্টি হয় তাকেই হিমদ্রোণী বলে। হিমদ্রোণী দেখতে ইংরেজি ‘U’ আকৃতির হয়, তাই একে ‘U’ আকৃতির উপত্যকাও বলে। হিমালয়ের রূপকুণ্ড একটি হিমদ্রোণী।

অ্যারেট : পাশাপাশি প্রবাহিত দুটো হিমাবাহ এর মধ্যে সংকীর্ণ ছুরির ফলার মতো তীক্ষ্ণ উচ্চভূমি বা বিভাজিকাকে অ্যারেট বলে। এগুলি কখনো কখনো করাতের দাঁতের মতো খাঁজ কাটা হয়ে থাকে।

কর্তিত শৈলশিরা: হিমাবাহ  পার্বত্য উপত্যকার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার সময় উপত্যকার উভয় পার্শস্ত স্পার  সমূহের সম্মুখভাগ গুলিকে কেটে দ্রনী বা উপত্যকাকে আরো চওড়া ও সোজা করে দেয়। এরূপ কর্তিত স্পার গুলিকে কর্তিত শৈলশিরা বলে ।

২. মরু অঞ্চলে বায়ু ও জলধারার কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপ এর বিবরণ দাও ।

Ans- মরু ও মরু অঞ্চলে বৃষ্টিপাত কম হলেও অববাহিকার, বায়ু ও জলধারার মিলিত কার্যের ফলে ভূমিরূপ পরিবর্তন ঘটে। নিম্নে ভূমিরূপ গুলি সংক্ষেপে আলোচনা করা হল –

ওয়াদি: মরু অঞ্চলের বালুকারাশির মধ্যে হঠাৎ বন্যার জল প্রবাহ পথে বেশিক্ষণ দাড়িয়ে থাকতে পারে না কিন্তু তার প্রবাহ পথের চিহ্নস্বরূপ শুষ্ক খাতটি পড়ে থাকে । এই শুষ্ক খাতকে ওয়াদি বলা হয়। ওয়াদি শব্দের আরবি অর্থ শুষ্ক উপত্যকা।

পেডিমেন্ট: পেডি শব্দের অর্থ পাদদেশ মন্ট শব্দের অর্থ পর্বত। সুতরাং, পেডিমেন্ট বলতে পর্বতের পাদদেশে সমতল ভূমিকে বোঝায়। মরুভূমির মধ্যস্থিত পর্বতের পাদদেশে বায়ুপ্রবাহের ক্ষয় কার্যের ফলে এক প্রকার প্রায় সমতল ভূমি সৃষ্টি হয় । এরূপ প্রায় সমতল ভূমির উপরের অংশ বেশ ঢালু হলেও তার নিচের অংশ মোটামুটি সমতল বলে এখানে ছোট ছোট জলধারা বাহিত শিলা চূর্ণ, নুড়ি ,কাকর ,বালি ইত্যাদি সঞ্চিত হয়ে সমভূমি গঠন করে। এভাবে বায়ুর ক্ষয়কার্য ও জলধারার সঞ্চয় কার্য যুগ্মভাবে মরুভূমির মধ্যস্থিত পার্বত্য অঞ্চলের পাদদেশে যে সমতলভূমি গঠন করে তাকে পেডিমেন্ট বলে। উদাহরণ: আফ্রিকার সাহারা মরুভূমির উত্তর পশ্চিম প্রান্তে পেডিমেন্ট লক্ষ্য করা যায়।

বাজাদা: বাজাদা একটি স্পেনীয় শব্দ। যার অর্থ পর্বতের পাদদেশের পলল সমভূমি। একটি পর্বত সীমান্ত থেকে কয়েক কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। অবনত ভূমির চারিদিকে পর্বতের পাদদেশে সৃষ্ট পলল শঙ্কুগুলি ক্রমশ বিস্তার লাভ করতে করতে পরস্পর সংযুক্ত হয়ে উচ্চভূমি ও প্লায়া হ্রদের মাঝে যে মৃদুল ঢাল বিশিষ্ট ভূমি গঠন করে তাকে বাজাদা বলে। বাজাদা তলদেশের থাকে পেডিমেন্ট এর আবৃত অংশ।

প্লায়া: যখন মরু অঞ্চলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত এরূপ একাধিক জলধারা কোন পর্বত বেষ্টিত অবনত ভূমিতে  এসে সঞ্চিত হয়, তখন সেখানে হ্রদের সৃষ্টি হয়। মরু অঞ্চলের এইরূপ লবণাক্ত হ্রদকে সাধারণভাবে প্লায়া বলে। প্লায়া উত্তর আফ্রিকার শট, ভারতের রাজস্থানের ধান্দ , যুক্তরাষ্ট্রেরর পশ্চিমঅংশে অবস্থিত। আরাবল্লী পর্বতের অবস্থিত সম্বর হ্রদ একটি প্লায়া।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top