দশম শ্রেনী ভূগোল অধ্যায় ২ - বায়ুমণ্ডল

দশম শ্রেনী ভূগোল অধ্যায় ২ – বায়ুমণ্ডল

বায়ুমণ্ডল ভূমিকা-

আমরা যেখানে বাস করি সেই পৃথিবীপৃষ্ঠের ওপরে বেষ্টন করে থাকা আবরণই হল বায়ুমণ্ডল, যা মাধ্যাকর্ষণ শক্তির টানে পৃথিবীর গায়ে চাদরের মতো জড়িয়ে থাকে। পৃথিবীতে জীবের বেঁচে থাকার জন্য যেমন বায়ুমণ্ডলের O2, Co2, গুরুত্বপূর্ণ তেমনি বায়ুমণ্ডলসহ পৃথিবীর জলবায়ুর ভারসাম্য রক্ষার্থে অন্যান্য উপাদানগুলির সঠিক মাত্রা থাকাও বাঞ্ছনীয়। বিশ্বব্ৰষ্মাণ্ড সৃষ্টিকর্তার নিয়ম অনুসারে গ্যাসীয় উপাদানগুলি তাদের ধর্ম অনুযায়ী এক-একটি স্তরে সজ্জিত আছে। আর আবহমানকাল ধরে মহাকাশে
বিজ্ঞানীরা সেই সৃষ্টিকর্তার রহস্যে মোড়া বায়ুমণ্ডলের স্তর নিয়ে চিরন্তন গবেষণা করে চলেছেন।

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো

১. পরিপৃক্ত বায়ুর আপেক্ষিক আদ্রতা কত হয়? 
a) ১০০%
b) ৭০%
c) ১৫০%
d) ৫০%

উত্তর: a) ১০০%

২. মেঘাচ্ছন্নতা পরিমাপ করার একক কি?
a) নট
b) সেমি
c) কিলোগ্রাম
d) অক্টআস

 উত্তর: d) অক্টআস

৩. বায়ুমন্ডলের প্রধান গ্যাসীয় উপাদান কোনটি?
a) নাইট্রোজেন
b) হাইড্রোজেন
c) অক্সিজেন
d) কার্বন ডাই অক্সাইড

উত্তর: a)  নাইট্রোজেন

৪. বায়ুমন্ডলে উপস্থিত গ্রীনহাউস গ্যাস কোনটি ?
a) হাইড্রোজেন
b) নাইট্রোজেন
c) কার্বন ডাই অক্সাইড
d) অক্সিজেন

উত্তর : c)  কার্বন ডাই অক্সাইড

৫. বায়ুমণ্ডলের অস্থায়ী উপাদান কোনটি?
a) O2
b) CO2
c) O3
d) NO2

উত্তর: c) O3

৬. বায়ুমন্ডলের কোন স্তর বিমান চলাচল এর পক্ষে উপযুক্ত?
a) ট্রপোস্ফিয়ার
b) মেসোস্ফিয়ার
c) আয়োনোস্ফিয়ার
d) স্ট্রাটোস্ফিয়ার

উত্তর: d) স্ট্রাটোস্ফিয়ার

৭. বায়ুমন্ডলের কোন স্তরকে ক্ষুব্ধ স্তর বলা হয়?
a) ট্রপোস্ফিয়ার
b) স্ট্রাটোস্ফিয়ার
c) থার্মোস্ফিয়ার
d) আয়নোস্ফিয়ার

উত্তর: a) ট্রপোস্ফিয়ার

৮. অতিবেগুনি রশ্মি শোষণ করে বায়ুমন্ডলের কোন স্তর?
a) ওজোন স্তর
b) আয়ন স্তর
c) স্ট্রাটোস্ফিয়ার
d) মেসোস্ফিয়ার

উত্তর: a) ওজোন স্তর

৯. পর্বতের কোন ঢালে শৈলোৎক্ষেপ বৃষ্টিপাত হয়?
a) মৃদু ঢালে
b) প্রতিবাত ঢালে
c) অনুবাত ঢালে
d) অমসৃণ ঢালে

উত্তর b) প্রতিবাত ঢালে

১০. স্থলবায়ু কোন সময় প্রবাহিত হয় ?
a) দিনের বেলায়
b) রাত্রিবেলায়
c) ভোর বেলায়
d) দুপুর বেলায়

উত্তর: b) রাত্রিবেলায়

১১. কোন স্তরকে শান্ত মন্ডল বলা হয়?
a) ট্রপোস্ফিয়ার
b) স্ট্রাটোস্ফিয়ার
c) মেসোস্ফিয়ার
d) আয়োনোস্ফিয়ার

উত্তর: b) স্ট্রাটোস্ফিয়ার

১২. মেসোস্ফিয়ার ও আয়োনোস্ফিয়ারের মধ্যবর্তী সংযোগকারী সীমানাকে কি বলে?
a) মনোপজ
b) মাইক্রোপজ
c) মেসোপজ
d) আয়নোপজ

উত্তর : c) মেসোপজ

১৩. কোন স্তরে হিলিয়াম ও হাইড্রোজেন গ্যাসের প্রাধান্য দেখা যায়?
a) এক্সোস্ফিয়ার
b) আয়োনোস্ফিয়ার
c) ম্যাগনেটোস্ফিয়ার
d) মেসোস্ফিয়ার

উত্তর: a) এক্সোস্ফিয়ার

১৪. ওজোন গ্যাসের ঘনত্ব মাপার একক কি?
a) ডবসন
b) সেলসিয়াস
c) মিলিলিটার
d) কিলোগ্রাম

উত্তর: a) ডবসন

১৫. অ্যালবেডো হিসাবে কত শতাংশ সূর্যরশ্মি মহাকাশে ফিরে যায় ?
a) ৫০%
b) ৪৩%
c) ৩৪%
d) ৫৩%

উত্তর: c) ৩৪%

১৬. সমুদ্রতল থেকে কোন স্থানে যত উপরে অবস্থান করে সেই স্থানের বায়ুমণ্ডলের উষ্ণতা
a) অপেক্ষাকৃত কম থাকে
b) অপেক্ষাকৃত বেশি থাকে
c) একই থাকে
d) জুতার উপর নির্ভরশীল নয়

উত্তর: a) অপেক্ষাকৃত কম থাকে

১৭. এর মধ্যে কোনটি সাময়িক বায়ু নয়।
a) স্থলবায়ু
b) সমুদ্র বায়ু
c) মেরু বায়ু
d) মৌসুমী বায়ু

উত্তর: c) মেরু বায়ু

১৮. গৃষ্ম কালে দিনের বেলা রাজস্থান হরিয়ানা তথা উত্তর-পশ্চিম ভারতের সৃষ্ট বায়ুর নাম কি
a) বোরা
b) মিস্ট্রাল
c) চিনুক
d) লু

উত্তর: d) লু

১৯. এদের মধ্যে কোনটি একটি শীতল বায়ুর উদাহরণ?
a) ফন
b) চিনুক
c) বোরা
d) লু

উত্তর: c) বোরা

২০. ফ্রান্সের রোন উপত্যকা থেকে সৃষ্ট উৎপন্ন বায়ুর নাম কি?
a) মিষ্ট্রাল
b) বোরা
c) চিনুক
d) সিরোক্কো

উত্তর: a) মিষ্ট্রাল

২১. প্রতিপ ঘূর্ণবাতের কেন্দ্রে
a) নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়
b) উচ্চচাপ সৃষ্টি হয়
c) চাপের সৃষ্টি হয় না
d) আবহাওয়া একই রকম থাকে

উত্তর: b) উচ্চচাপ সৃষ্টি হয়

২২. যুক্তরাষ্ট্রের মেক্সিকো উপকূল ও মিসিসিপি নদীর অববাহিকায় সৃষ্ট ঘূর্ণবাত এর নাম
a) হেরিকেন
b) টর্নেডো
c) টাইফুন
d) সাইক্লোন

উত্তর: b) টর্নেডো

২৩. বঙ্গোপসাগর উদ্ভূত ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত কি বলে
a) সাইক্লোন
b) টাইফুন
c) টর্নেডো
d) হেরিকেন

উত্তর: a) সাইক্লোন

২৪. জেট বায়ু কত ডিগ্রি অক্ষাংশে সৃষ্টি হয়
a) ৩০
b) ৪০
c) ২০
d) ১০

উত্তর: a) ৩০

২৫. বাষ্পীভবন এর হার কোন বিষয়ের উপর নির্ভরশীল নয়
a) আদ্রতা
b) তাপমাত্রা
c) বায়ুপ্রবাহ
d) শিশিরাঙ্ক

উত্তর: d) শিশিরাঙ্ক

২৬. বায়ুর আদ্রতা মাপক যন্ত্রটির নাম কি
a) হাইগ্রোমিটার
b) থার্মোমিটার
c) ডবসনমিটার
d) কোনোটিই নয়

উত্তর: a) হাইগ্রোমিটার

২৭. অধঃক্ষেপণ এর __ শতাংশ বৃষ্টিপাতের আকারে ঘটে ।
a) ১০০
b) ৯০
c) ৮০
d) ০

উত্তর: a) ১০০

২৮. বাণিজ্য বায়ু বলা হয় কোন নিয়ত বায়ুকে ?
a) আয়ন বায়ু
b) পশ্চিমা বায়ু
c) মেরু বায়ু
d) কোনোটিই নয়

উত্তর: a) আয়ন বায়ু

২৯. সীমান্ত সৃষ্টি হয় কোন ধরনের ঘূর্ণবাতে?
a) ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত
b) প্রতীপ ঘূর্ণবাত
c) নতিসিতোষ্ণ ঘূর্ণবাত
d) কোনোটিই নয়

উত্তর: c) নাতিশীতোষ্ণ ঘূর্ণবাত

৩০. জেট বায়ু প্রবাহিত হয়
a) স্ট্রাটোস্ফিয়ার
b) মেসোস্ফিয়ার
c) নিম্ন ট্রপোস্ফিয়ার
d) ঊর্ধ্ব ট্রপোস্ফিয়ার

উত্তর: d) ঊর্ধ্ব ট্রপোস্ফিয়ার

শূন্যস্থান পূরণ করো

১. বায়ুর চাপ মাপার এককের নাম _____।

উত্তর: মিলিবার

২. দুটি স্থানের মধ্যে বায়ুচাপের পার্থক্যকে বলা হয় _____।

উত্তর: বায়ুর চাপ ঢাল

৩. পৃথিবীব্যাপী স্থায়ী বায়ুচাপ বলয় সংখ্যা ___।

উত্তর: ৭টি

৪. সর্বোচ্চ উষ্ণতা ও সর্বনিম্ন উষ্ণতার বিয়োগফলকে ____বলা হয় ।

উত্তর: উষ্ণতার প্রসর

৫. ভূপৃষ্ঠের ___অংশে দৈনিক উষ্ণতার প্রসর সবথেকে বেশি।

উত্তর: মরু

৬. শিলং____ঢালে অবস্থিত হওয়ায় সেখানে বৃষ্টিচ্ছায় অঞ্চল সৃষ্টি হয়েছে।

উত্তর: অনুবাত

৭. শীতের প্রারম্ভে ____ বায়ুপ্রবাহ শুরু হয় এপ্রিল মাস পর্যন্ত চলে।

উত্তর: জেট বায়ু

৮. গ্রীষ্মকালে ক্যারিবিয়ান সাগরে সৃষ্ট শক্তিশালী ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ কে প্রভাবিত করে তাকে ___ বলে।

উত্তর: হেরীকেন

৯. উত্তর আমেরিকার রকি পর্বত এর পূর্ব থেকে উৎপন্ন বায়ু ____।

উত্তর: চিনুক

১০. একই বায়ুর চাপ বিশিষ্ট স্থান গুলিকে মানচিত্রে যে কাল্পনিক রেখা দ্বারা যুক্ত করা হয় তাকে___ বলে।

উত্তর: সমচাপ রেখা

১১. এল নিনো শব্দের অর্থ____।

উত্তর: শিশুখ্রীষ্ট

১২.CFC এর উষ্ণকরন ক্ষমতা প্রায় ____%।

উত্তর: ১৪

১৩. কার্যকারী সৌর বিকিরণের পরিমাপ ____।

উত্তর: ৬৬%

১৪. উষ্ণমন্ডল এর বার্ষিক গড় উষ্ণতা ___।

উত্তর: প্রায় ২৭°C

১৫.___ কে ক্ষুব্ধমন্ডল বলা হয়।

উত্তর: ট্রপোস্ফিয়ার

১৬. দিনের আকাশ উজ্জ্বল থাকলে তাপীয় ফল___ হয়।

উত্তর: বৃদ্ধি

১৭. শহরাঞ্চলে কুয়াশার সঙ্গে ধোয়া মিশে সৃষ্টি হয়___।

উত্তর: ধোঁয়াশা

১৮.৪০° দক্ষিণ অক্ষাংশে প্রবাহিত প্রবল পশ্চিমা বায়ু কে ____ বলা হয়।

উত্তর: গর্জনশীল চল্লিশা

১৯. ঘুর্ণবাতের নিম্নচাপ বিশিষ্ট কেন্দ্রকে___ বলে।

উত্তর: চক্ষু

২০. বর্ষাকালের তুলনায় শীতকালে বায়ুর চাপ___ হয়।

উত্তর: বেশি

শুদ্ধ অশুদ্ধ নির্বাচন করো

১. এক্সোস্ফিয়ারে চৌম্বক ক্ষেত্র সৃষ্টি হয়।

উত্তর: অশুদ্ধ

২. ওজন গহবর সৃষ্টির ফলে পৃথিবীর তাপমাত্রা কমে যাচ্ছে।

উত্তর: অশুদ্ধ

৩. সূর্য রশ্মির অতি সামান্য অংশ (200 সেমি ভাগের এক ভাগ) পৃথিবীতে এসে পৌঁছয়।

উত্তর: শুদ্ধ

৪. স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর উপরে স্তরটি আয়োনোস্ফিয়ার নামে পরিচিত।

উত্তর: অশুদ্ধ

৫. স্ট্রাটোস্ফিয়ারকে শান্ত মন্ডল বলা হয়।

উত্তর: শুদ্ধ

৬. বায়ুমণ্ডল একটি মিশ্র গ্যাসীয় পদার্থ।

উত্তর: শুদ্ধ

৭. বায়ুমন্ডলের গ্যাসীয় উপাদান এর 99 শতাংশ নাইট্রোজেন ও অক্সিজেন নিয়ে গঠিত।

উত্তর: শুদ্ধ

৮. উষ্ণতম মাস এর গড় উষ্ণতা – শীতলতম মাসের গড় উষ্ণতা = দৈনিক তাপমাত্রার প্রসর।

উত্তর: অশুদ্ধ

৯. ট্রপোস্ফিয়ারের উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে প্রতি কিমিতে গড়ে 4.6°c হারে উষ্ণতা বৃদ্ধি পায়।

উত্তর: অশুদ্ধ

১০. মেরু ও বৃত্তের কাছাকাছি অঞ্চলে উষ্ণতা কম থাকে বলে একে শীতপ্রধান নাতিশীতোষ্ণ মন্ডল বলা হয়।

উত্তর: শুদ্ধ

১১. বায়ুমন্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইড এর পরিমাণ ৩%।

উত্তর: অশুদ্ধ

১২. এল নিনোর প্রভাবে প্রশান্ত মহাসাগরের পশ্চিম উপকূলীয় দেশগুলিতে বৃষ্টির প্রভাব বাড়ে।

উত্তর: অশুদ্ধ

১২. সমুদ্র পৃষ্ঠে বায়ুর চাপ প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে 1013.25 মিলিবার।

উত্তর: শুদ্ধ

১৩. বায়ু চাপের তারতম্য অনুসারে সমগ্র পৃথিবীতে সাতটি বায়ুচাপ বলয় অবস্থান করছে।

উত্তর: শুদ্ধ

১৪. উত্তর গোলার্ধে 25 ডিগ্রি থেকে 30 ডিগ্রি অক্ষাংশের মধ্যে দুটি উপক্রান্তীয় উচ্চচাপ বলয়ের বায়ু নিম্নমুখী হওয়ায় এর কোন পার্শ্ব প্রবাহ থাকে না এই উপক্রান্তীয় অঞ্চল কে শান্ত বলয় বলে।

উত্তর: শুদ্ধ

১৫. স্থলবায়ু একটি সাময়িক বায়ুর উদাহরণ।

উত্তর: শুদ্ধ

১৬. ফন একটি শীতল বায়ুর উদাহরণ।

উত্তর: অশুদ্ধ

১৭. ঘূর্ণবাত অপেক্ষা প্রতীপ ঘূর্ণবাত এর বায়ু প্রবাহের গতি অনেক বেশি থাকে।

উত্তর: অশুদ্ধ

১৮. বায়ুর মধ্যে উপস্থিত অতিরিক্ত জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হয়ে অতি সূক্ষ্ম জলকণার পরিণত হয় একে ঘনীভবন বলে।

উত্তর: শুদ্ধ

১৯. আবহাওয়া মানচিত্রে মেঘাচ্ছন্নতার প্রতীক চিহ্নের ব্যবহারে আকাশে মেঘের অবস্থান এর পরিমাণকে অক্টাস এ প্রকাশ করা হয়।

উত্তর: শুদ্ধ

২০. ভারতের কালবৈশাখী একটি পরিচলন বৃষ্টিপাত এর উদাহরণ।

উত্তর: অশুদ্ধ

স্তম্ভ মেলাও

১. জেট বিমান চলাচলa. ঊর্ধ্ব ট্রপোস্ফিয়ার
২. উষ্ণতার তাপীয় মিশ্রনb. মেসোস্ফিয়ার
৩. জেট বায়ু প্রবাহ দেখা যায়c. ম্যাগনেটোস্ফিয়ার
৪. বেতার তরঙ্গ প্রতিফলিত হয়d. ট্রপোস্ফিয়ার
৫. উল্কাপিণ্ড ধ্বংস হয়e. আয়োনোস্ফিয়ার
৬. অতিবেগুনি রশ্মি শোষিত হয়f. স্ট্রাটোস্ফিয়ার
৭. তড়িৎ চুম্বকীয় স্তরg. ওজোন স্তর

উত্তর: ১ – f, ২ – d, ৩ – a, ৪ – e, ৫ – b, ৬ – g, ৭ – c

একটি দুটি শব্দে উত্তর দাও

১. মৌসুমী বায়ু কোন প্রকার বায়ু?

উত্তর: সাময়িক বায়ু

২. বায়ুমন্ডলের কোন স্তরে মেরুজ্যোতি সৃষ্টি হয়?

উত্তর: আয়নোস্ফিয়ার স্তরে মেরুজ্যোতি সৃষ্টি হয়।

৩. বায়ুমন্ডলের সর্বনিম্ন স্তর কোনটি?

উত্তর: ট্রপোস্ফিয়ার

৪. গৃষ্মকালীন পাঞ্জাব রাজস্থানের ধুলিঝড় কি নামে পরিচিত?

উত্তর: আঁধি নামে পরিচিত

৫. পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জে ঝড় কে কি বলা হয়?

উত্তর: হ্যারিকেন

৬. বায়ুর চাপ পরিমাপক যন্ত্র টির নাম কি?

উত্তর: ব্যারোমিটার

৭. সম্পৃক্ত বায়ুর আদ্রতা কত শতাংশ?

উত্তর: ১০০

৮. কোন বায়ুর গতিপথে মহাদেশের পশ্চিমভাগে মরুভূমি সৃষ্টি হয়েছে?

উত্তর: আয়ন বায়ু

৯. বায়ুর ঘনত্ব বাড়লে চাপের কিরূপ পরিবর্তন হয়?

উত্তর: চাপ বাড়ে

১০. বৃষ্টিছায়া অঞ্চল পর্বতের কোন ঢালে অবস্থান করে?

উত্তর: অনুবাত ঢালে

১২. স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর উর্ধ্বসীমা এর উষ্ণতা কত হয়?

উত্তর: 0 ডিগ্রী সেলসিয়াস

১৩. রকি পর্বত এর পূর্ব ঢালে প্রবাহিত নিম্নগামী উষ্ণ স্থানীয় বায়ু কে কি বলে?

উত্তর: চিনুক

১৪. 60 ডিগ্রি দক্ষিণ অক্ষরেখায় পশ্চিমা বায়ু কে কি বলা হয়?

উত্তর: তীক্ষ্ণ চিৎকারকারী ষাট

১৫. সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলে উষ্ণতার প্রসর কিরূপ হয়?

উত্তর: অপেক্ষাকৃত কম হয়

১৬. কোন স্তরকে ক্ষুব্ধ মন্ডল বলা হয়?

উত্তর: ট্রপোস্ফিয়ারকে

১৭. বায়ুচাপের তারতম্যের প্রধান কারণ কি?

উত্তর: উষ্ণতার তারতম্য

১৮. বায়ুমন্ডলের কোন স্তরকে ঘন মন্ডল বলা হয়?

উত্তর: ট্রপোস্ফিয়ার

১৯. ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত কোন অঞ্চলে সৃষ্টি হয়?

উত্তর: উভয় গোলার্ধে কুড়ি ডিগ্রী থেকে 60 ডিগ্রি অক্ষাংশে।

২০. ভারতের কোন অঞ্চলকে বৃষ্টিছায়া অঞ্চল ?

উত্তর: লাদাখ

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন উত্তর [প্রশ্ন মান-২/৩]

১. শিশিরাঙ্ক কাকে বলে?

উত্তর: সাধারণ বায়ুতে উপস্থিত জলীয়বাষ্প দ্বারা বায়ু সম্পৃক্ত হয় না। কিন্তু বায়ুর আপেক্ষিক আদ্রতা ১০০% অতিক্রম করলে বায়ু সম্পৃক্ত হয় এবং বায়ুতে উপস্থিতজলীয় বাষ্প শিশির ,কুয়াশা প্রভৃতিতে পরিণত হয়। অর্থাৎ যে উষ্ণতায় জলীয়বাষ্প শিশির কণায় পরিণত হয় তাকে শিশিরাঙ্ক বলে।

২. বাষ্পীভবন কাকে বলে? এটি কোন কোন বিষয়ের উপর নির্ভরশীল?

উত্তর: তরল পদার্থের বাষ্পে পরিণত হওয়ার প্রক্রিয়াকে বাষ্পীভবন বলে।

     বাষ্পীভবন আদ্রতা, তাপমাত্রা, বায়ুপ্রবাহ এর উপর নির্ভরশীল।

৩. জেট বায়ু কাকে বলে ?এর বিশেষত্ব কি?

উত্তর: জেট বায়ু হলো একটি দ্রুতগামী বায়ু স্রোত যা মূলত 30 ডিগ্রী উত্তর অক্ষাংশের বায়ুমন্ডলের 7- 3 কিমি ঊর্ধ্ব ট্রপোস্ফিয়ারের একটি সংকীর্ণ আঁকাবাঁকা পশ্চিম থেকে পূর্বে পথে প্রবাহিত প্রবাহিত হয় ।

বিশেষত্ব:  ১. জেট বায়ুর গতিবেগ সাড়ে 300 থেকে সাড়ে 400 কিমি /ঘন্টা ।
২. শীতের প্রারম্ভেই শুষ্ক বায়ু প্রবাহ শুরু হয় চলে মার্চ এপ্রিল মাস পর্যন্ত।

৪. ঘূর্ণবাত ও প্রতীপ ঘূর্ণবাত এর পার্থক্য লেখ।

উত্তর:

1. ঘূর্ণবাত অপেক্ষা প্রতীপ ঘূর্ণবাত এর বায়ু প্রবাহের গতি অনেক কম।
2. ঘূর্ণবাতের কেন্দ্রে নিম্নচাপ থাকে, প্রতিপ ঘূর্ণবাতের কেন্দ্রে উচ্চচাপ থাকে ।

৫. মিস্ট্রাল কোথায় সৃষ্টি হয়? এর গতিবেগ কত?

উত্তর: শীতকালে ফ্রান্সের রোন উপত্যকা থেকে উৎপন্ন হয়ে ভুমধ্যসাগরের উপকূলের দিকে প্রবাহিত হয়। শীতল ও শুষ্ক বায়ুর গতিবেগ ৫০-৬৫ কিমি/ঘন্টা।

৬. সুমেরু ও কুমেরু উচ্চচাপ বলয় এর অবস্থান কি?

উত্তর: উভয় গোলার্ধে 80 থেকে 90 ডিগ্রি অক্ষরেখা মধ্যবর্তী অঞ্চল যথাক্রমে সুমেরু ও কুমেরু উচ্চচাপ বলয় নামক বায়ুমন্ডলে সর্বাধিক গভীর উচ্চচাপ বলয় দুটি অবস্থান করে।

৭. এল নিনো শব্দের অর্থ কি? এল নিনো কাকে বলে?

উত্তর: শিশুখ্রীষ্ট, এল নিনো হল দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের চিলি উপকূলে সাধারণত ক্রিস্টমাসের সময় আগত অস্থির অনির্দিষ্ট এবং উষ্ণ সমুদ্র স্রোত।

৮. উষ্ণতার তারতম্যের ভিত্তিতে বায়ুমন্ডলকে কটি ভাগে ভাগ করা যায় ও কি কি?

উত্তর: ৬ টি ভাগে ভাগ করা যায় –

1. ট্রপোস্ফিয়ার
2. স্ট্রাটোস্ফিয়ার
3. মেসোস্ফিয়ার
4. আয়নোস্ফিয়ার
5. এক্সোস্ফিয়ার
6. ম্যাগনেটোস্ফিয়ার

৯. বিষমমন্ডলকে কটি ভাগে ভাগ করা যায়? কি কি?

উত্তর: ৪ টি ভাগে ভাগ করা যায় –

1. আণবিক নাইট্রোজেন স্তর
2. পারমানবিক অক্সিজেন স্তর
3. হিলিয়াম স্তর
4. হাইড্রোজেন স্তর

১০. স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর দুটি বৈশিষ্ট্য লেখ।

উত্তর:

১. এই স্তরে উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা ক্রমশ বাড়তে থাকে এবং এর সর্বোচ্চ উচ্চতায় তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে 0 ডিগ্রী সেলসিয়াসে পৌঁছেয়।
২. স্তরটি জলীয়বাষ্প ও মেঘ না থাকায় কোন প্রকার বায়বীয় গোলযোগ ঘটে না অর্থাৎ আবহাওয়া শান্ত থাকে তাই কে শান্ত মন্ডল বলে।

ব্যাখ্যা মূলক প্রশ্ন (প্রশ্ন মান-৫)

১. ওজোন স্তরের গুরুত্ব লেখ। ওজোন স্তর বিনাশ সম্পর্কে বর্ণনা দাও।

উত্তর: স্ট্রাটোস্ফিয়ার এর ২০-৩৫ কিমি উচ্চতায় যে ওজোন গ্যাসের আস্তরণ সৃষ্টি হয়েছে তাকে ওজোন স্তর বলে। এই স্তরটি সূর্য থেকে আগত তিনটি ক্ষতিকারক অতিবেগুনি রশ্মিকে শোষণ করে পৃথিবীর জীবজগতকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। তাছাড়া ভূপৃষ্ঠ থেকে দীর্ঘ তরঙ্গের অবলোহিত রশ্মির বিকিরণ বাধা দিয়ে বায়ুমন্ডলের উষ্ণতার ভারসাম্য বজায় রাখে।

ওজোন স্তরের বিনাশ: ওজোন স্তরে প্রাকৃতিক ভাবে ক্রমান্বয়ে ওজোন গ্যাস সৃষ্টি ও ধ্বংস হয়। কিন্তু ওজোন গ্যাস সৃষ্টির তুলনায় ধ্বংস বেশি হলেই ওজোন স্তর পাতলা হতে শুরু করে। এই ঘটনাকে ওজোন স্তরের বিনাশে বলা হয়। ক্রমবর্ধমান মানুষের চাহিদার কারণে বর্তমানে বিপুল পরিমাণে CFC,CH4,N2O উৎপাদিত হচ্ছে এবং এগুলি সংস্পর্শে অতি মূল্যবান ওজোন স্তর ধীরে ধীরে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যেমন- আন্টার্কটিকা মহাদেশে ওপর ওজন গহবর সৃষ্টি হয়েছে। ফলস্বরূপ পৃথিবীর তাপমাত্রা ধীরে ধীরে বাড়ছে, মানুষ তথা সমগ্র জীবকুল বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে ও বাস্তু তন্ত্রের পরিবর্তন ঘটছে।

২. বায়ুমণ্ডল উত্তপ্ত হওয়ার পদ্ধতি গুলি বর্ণনা করো।

উত্তর:

বিকিরণ: ক্ষুদ্র তরঙ্গ যুক্ত সূর্য রশ্মি ভূপৃষ্ঠেকে প্রত্যক্ষভাবে উত্যক্ত করার পর ভূপৃষ্ঠ সংলগ্ন বায়ুস্তর বৃহৎতরঙ্গদের দ্বারা পরোক্ষভাবে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এই পদ্ধতিকে বিকিরণ পদ্ধতি বলে।

পরিবহন: সূর্যতাপে ভূপৃষ্ঠ  ও ভূপৃষ্ঠ সংলগ্ন নিচের বায়ুস্তর উত্তপ্ত হয়। এই তাপ উপরস্থ অপেক্ষাকৃত শীতল বায়ু স্তরে পরিবাহিত হয়। এইভাবে বায়ুস্তর থেকে বায়ুস্তরে তাপ পরিবাহীত হতে থাকে যতক্ষণ না উভয় বায়ু স্তরে তাপ সমান হয়। এই পদ্ধতিতে তাপ পরিবহন বলে।

পরিচলন: উত্তপ্ত ভূপৃষ্ঠের তাপে ভূপৃষ্ঠ সংলগ্ন বায়ুস্তর সর্বপ্রথম সর্বাধিক উত্তপ্ত হয় এবং উষ্ণ বায়ু প্রসারিত ও হালকা হয়ে উপরে উঠে যায়। তখন এই বায়ুশূন্য স্থানে পূরণের জন্য আশেপাশের উচ্চচাপ যুক্ত অঞ্চলের শীতল ও ভারী বায়ু ছুটে এসে পুনরায় উত্তপ্ত হয়। এই পদ্ধতিকে পরিচলন বলে।

অ্যাডভেকশন: কোন স্থানের উষ্ণ বায়ু ভূপৃষ্ঠের সমান্তরালে প্রবাহিত হয়ে গতিপথের অঞ্চল সমূহ এবং অন্য স্থানে শীতল বায়ু কে উত্তপ্ত করে। একে অ্যাডভেকশন বলে।

প্রত্যক্ষ সৌরতাপ শোষণ: সূর্য রশ্মি বায়ুমন্ডলের মধ্য দিয়ে ভূপৃষ্ঠে আসার সময় কিছু পরিমান তাপ, ধূলিকণা, জলীয় বাষ্প, CO2 সরাসরি শোষণ করে এবং বায়ুমন্ডলকে উত্তপ্ত করে। এই পদ্ধতিকে প্রত্যক্ষ সৌরতাপ শোষণ বলা হয়।

এছাড়াও তেজস্ক্রিয় পদার্থ, ভূগর্ভস্থ তাপ, লীন তাপ, মনুষ্য সৃষ্ট তাপ প্রভৃতি কারণে বায়ুমণ্ডল উত্তপ্ত হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top